বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১

প্রশাসনের আমলাদের সম্পদের হিসাব নিতে সেল গঠন!

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

প্রকাশিত: জুলাই ৩, ২০২৪, ০৯:২৭ এএম

প্রশাসনের আমলাদের সম্পদের হিসাব নিতে সেল গঠন!

প্রশাসনের প্রভাবশালী সাবেক ও বর্তমান কয়েকজন কর্মকর্তার বিপুল সম্পদ নিয়ে দেশজুড়ে সমালোচনার মধ্যে প্রশ্ন উঠেছে সরকারি চাকুরে হয়ে তাঁরা এত সম্পদ গড়লেন কীভাবে? এমন পরিস্থিতিতে সরকারি চাকুরে ও তাঁদের পরিবারের সম্পদ বিবরণীর ঘোষণা এবং সময়ে সময়ে দাখিলের বিধি বাস্তবায়ন করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এ ক্ষেত্রে সরকারেরও অবস্থানও পরিস্কার, সম্পদের হিসাব দেওয়ার বিষয়ে ছাড় পাবেন না সরকারি চাকুরেরা। বিদ্যমান ‘সরকারি কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা-১৯৭৯’ অনুযায়ী পাঁচ বছর অন্তর তাঁদের সম্পদের হিসাব দিতে হবে। তাঁদের সম্পদের হিসাব দেখভাল করতে প্রয়োজনে প্রতিবেশী দেশ ভারতের মতো নতুন সেল গঠন করা হবে। ওই সেলের কাজই হবে সম্পদের হিসাবের নথি পর্যালোচনা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া। এ ছাড়া ‘সরকারি কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা, ১৯৭৯ ’-এ অন্তর্ভুক্ত করা হতে পারে কিছু গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট। বিষয়টি নিয়ে এরই মধ্যে কয়েক দফা বৈঠক করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।  জনপ্রশাসনমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘সরকারি চাকুরেদের সম্পদের হিসাবের বিষয়ে আমরা বরাবরই ইতিবাচক। তাঁরা কিন্তু আপনাদের মতোই প্রতিবছর আয়কর রিটার্ন জমা দেন। অনিয়ম-দুর্নীতির বিষয়ে সরকার জিরো টলারেন্স নীতিতে অটল।’ সরকারি কর্মচারীদের সম্পদের হিসাবসহ বেশ কিছু বিষয় যুগোপযোগী করতে ‘সরকারি কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা-১৯৭৯’ সংশোধন করা হচ্ছে।  মন্ত্রী বলেন, ‘সেখানে যেসব বিষয় অন্তর্ভুক্ত করে বিধিমালাটি হালনাগাদ করা হবে, তাতে আপনাদের চাহিদা ও জনমতের প্রতিফলন থাকবে বলে আমার বিশ্বাস। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এর রেজাল্ট পাবেন। উল্লেখ্য, ‘সরকারি কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা, ১৯৭৯’ অনুযায়ী, সরকারি চাকুরেদের পাঁচ বছর পর সম্পদের হিসাব বিবরণী জমা দিতে হবে। এতে বলা হয়েছে, ‘প্রত্যেক সরকারি কর্মচারী প্রতি পাঁচ বছর অন্তর প্রদর্শিত সম্পত্তির হ্রাস-বৃদ্ধির হিসাব বিবরণী যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সরকারের কাছে দাখিল করবেন। প্রত্যেক সরকারি কর্মচারী চাকরিতে প্রবেশের সময় যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে সরকারের কাছে তাঁর অথবা তাঁর পরিবারের সদস্যদের মালিকানাধীন বা দখলে থাকা শেয়ার, সার্টিফিকেট, সিকিউরিটি, বিমা পলিসি এবং ৫০ হাজার টাকা বা ততোধিক মূল্যের অলঙ্কারাদিসহ স্থাবর বা অস্থাবর সম্পত্তির ঘোষণা দেবেন।’ কিন্তু বিধিমালাটির এ বিধান মানছেন না অধিকাংশ সরকারি চাকুরে। ২০২১ ও ২০২২ সালে সব মন্ত্রণালয়কে এ বিষয়ে কয়েকবার চিঠি ও তাগিদপত্র দিয়েও তা কার্যকর করতে পারেনি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এই পরিস্থিতিতে সরকারি চাকুরে ও তাঁদের পরিবারের সম্পদ বিবরণীর ঘোষণা এবং সময়ে সময়ে দাখিলের বিধি বাস্তবায়ন করতে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী তিন মাসের মধ্যে এ বিষয়ে অগ্রগতি প্রতিবেদনও দাখিল করতে বলা হয়েছে। এ-সংক্রান্ত রিটের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল মঙ্গলবার বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী ইবাদত হোসেনের বেঞ্চ রুলসহ এই আদেশ দেন। একই সঙ্গে সরকারি চাকুরে ও তাঁদের পরিবারের অবৈধ সম্পদ অর্জন রোধে প্রয়োজনীয় নীতিমালা ও আইন করতে নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইনি ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। এ ছাড়া সম্পদ বিবরণী প্রকাশ করতে কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না, তাও জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে। এ বিষয়ে পরবর্তী আদেশের জন্য আগামী ২২ অক্টোবর দিন ধার্য করেছেন আদালত। 
আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী সুবীর নন্দী দাস। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। আর দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এ কে এম ফজুলল হক। এর আগে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সুবীর নন্দী দাস গত সোমবার রিটটি দায়ের করেন। 
শুনানিতে হাইকোর্ট বলেন, ‘দুর্নীতি সুশাসন ও উন্নয়নের অন্তরায়। যেকোনো মূল্যে দুর্নীতি-অর্থ পাচার বন্ধ করতে হবে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু বলেছেন, সোনার বাংলা গড়তে হলে সোনার মানুষ গড়তে হবে। ঘুষ-দুর্নীতি-অর্থ পাচার দিয়ে সোনার মানুষ গড়া যায় না। ঘুষ-দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে। তাহলেই সোনার বাংলা গড়তে পারব।’ 
শুনানিতে রিটকারী আইনজীবী সুবীর নন্দী দাস বলেছেন, ‘রুলস অনুযায়ী অনুমতি ছাড়া ভবনও করা যায় না, অথচ তাঁরা রিসোর্ট করছেন। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা দেওয়া হয় জনগণের করের টাকা থেকে। রাজস্বের ৪৩ শতাংশ খরচ করা হয় তাঁদের বেতন-ভাতা বাবদ। তাহলে আমাদের কেন জানার অধিকার থাকবে না তাঁদের কী পরিমাণ সম্পদ আছে?’  সম্প্রতি সরকারের সাবেক ও বর্তমান কয়েকজন কর্মকর্তা এবং তাঁদের পরিবারের বিপুল সম্পদের তথ্য গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে সারা দেশে তোলপাড় শুরু হয়। কাউকে দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। এসব ব্যক্তির বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শুরু করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। অনেকের বিদেশ যাওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা দেন আদালত। এমন পরিস্থিতিতে সরকারি চাকুরেদের সম্পদের হিসাব দেওয়ার বিষয়টি ফের সামনে আসে। 
গত ২০ জুন সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন জাতীয় সংসদে বলেন, ‘সরকারি কর্মচারীদের স্থাবর-অস্থাবর সম্পদের বার্ষিক হিসাব বাধ্যতামূলক করা এখন সময়ের দাবি। কিছুসংখ্যক দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তার কারণে দেশের সুনাম নষ্ট হচ্ছে। স্বচ্ছতা, জবাবদিহি ও কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করলে দুর্নীতি কমবে।’ এ ছাড়া সরকারি দলের সংসদ সদস্যদেরও অনেকে জাতীয় সংসদে একই দাবিতে সোচ্চার হন। এমন পরিস্থিতিতে বিধিমালা নিয়ে দৌড়ঝাঁপ শুরু করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। গত সোম-মঙ্গলবারও বিধিমালার খসড়া নিয়ে বৈঠক করেছেন তাঁরা। 
বৈঠক সূত্রগুলো জানিয়েছে, সংশোধিত খসড়ায় সরকারি কর্মচারীদের সম্পদের হিসাব দেওয়ার বিধানটি বহাল রাখা হবে। যদিও ২০২২ সালের খসড়ায় এটি তুলে দিয়ে বলা হয়েছিল—যাঁরা নিয়মিত জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) আয়কর রিটার্ন দাখিল করেন, তাঁদের আলাদাভাবে কোনো সম্পদের হিসাব জমা দিতে হবে না। সরকার প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্মচারীর এনবিআরে দাখিল করা সম্পত্তির হিসাব বিবরণী সংগ্রহ করবে। এ ছাড়া প্রস্তাবিত সংশোধনীতে সরকারি কর্মচারীদের ফটকা কারবারে (শেয়ারবাজার) বিনিয়োগের সুযোগ রাখা হতে পারে। তবে অফিস চলাকালে এ-সংক্রান্ত কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবেন না। অথচ বিদ্যমান বিধিমালায় ফটকা কারবারের বিষয়ে বলা হয়েছে, কোনো সরকারি কর্মচারী এমন কোনো ব্যবসায় বিনিয়োগ করতে পারবেন না, যার মূল্য প্রতিনিয়ত অস্বাভাবিকভাবে ওঠানামা করে। প্রশাসনবিষয়ক একাধিক বইয়ের রচয়িতা ও সরকারের সাবেক অতিরিক্ত সচিব মো. ফিরোজ মিয়া বলেন, ‘বিদ্যমান বিধিমালা অনুযায়ী সরকারি চাকুরেরা সম্পদের হিসাব না দিলে অসদাচরণ বলে গণ্য হবে। এই অপরাধে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হতে পারে। নিয়মিত মনিটরিং করে ব্যবস্থা নিলে সবাই সম্পদের হিসাব দেবেন। অভিযোগ আছে আমলারা আয়-ব্যয়ের তথ্যবিবরণী বা আয়কর জমা দিলেও সত্য গোপন প্রায় সবাই করেন। বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী রাজধানীর গুলশান বনানী ও ধানমন্ডিসহ অভিজাত এলাকাগুলোতে অধিকাংশ সরকারী আমলাদেরই বাড়ি-ফ্ল্যাট।

 

 

ডেইলি খবর টুয়েন্টিফোর

Link copied!