বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১

ইহুদিবিদ্বেষ বন্ধে যে ধরনের পোস্ট ফেসবুক থেকে সরিয়ে ফেলবে মেটা

ডেইলি খবর ডেস্ক

প্রকাশিত: জুলাই ১০, ২০২৪, ০১:১২ পিএম

ইহুদিবিদ্বেষ বন্ধে যে ধরনের পোস্ট ফেসবুক থেকে সরিয়ে ফেলবে মেটা

ফেসবুকে জায়োনিস্ট বা ইহুদিবাদী শব্দ সংবলিত পোস্ট সরিয়ে ফেলবে মেটা। কারণ এই শব্দের আড়ালে ইহুদিদের বিরুদ্ধে বিদ্বেষ ছড়ানো হচ্ছে বলে দাবি করছে কোম্পানিটি। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা যায়।

মেটা বলছে, যেসব পোস্টে ‘ইহুদি’ বা ‘ইসরায়েলিদের’ বোঝাতে ‘জায়োনিস্ট’ শব্দ ব্যবহার করা হয়, সেসব পোস্ট মুছে ফেলবে কোম্পানিটি। এ ছাড়া যেসব পোস্টে শব্দটি স্পষ্টভাবে ইহুদিবাদকে রাজনৈতিক আন্দোলন হিসেবে আলোচনা করতে ব্যবহৃত হয়, সেগুলোও সরিয়ে ফেলা হবে।

ফিলিস্তিনে ইহুদি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য একটি রাজনৈতিক আন্দোলন হিসেবে জায়োনিজম বা জায়নবাদের উদ্ভব হয়েছে। তবে জায়োনিস্ট বা ইহুদিবাদী শব্দটি এখন ইহুদিদের বিরুদ্ধে গালি হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে বলে জানিয়েছে মেটা।

ইতিমধ্যে ফেসবুক ও ইনস্টাগ্রামে কোনো ব্যক্তির জাতি, যৌনতা বা অক্ষমতার মতো বিষয়গুলোর ওপর আক্রমণ নিষিদ্ধ করেছে মেটা। তবে কারও রাজনৈতিক অবস্থান ও বিশ্বাসের ওপর আক্রমণ নিষিদ্ধ করা হয়নি।

এক বিবৃতিতে মেটা বলছে, কোম্পানিটি এমন কনটেন্টকে লক্ষ করবে, যা অ্যান্টি-সেমিটিক বা ইহুদিবিদ্বেষী শব্দ ব্যবহার করে। সেই সঙ্গে জায়োনিস্টদের আক্রমণের আড়ালে ইহুদি বা ইসরায়েলিদের বিরুদ্ধে ভীতি প্রদর্শন বা সহিংসতার মাধ্যমে অন্য ধরনের ক্ষতির হুমকি দেয় এমন কনটেন্ট নিষিদ্ধ করবে।

জায়োনিস্ট শব্দ ব্যবহার করে বিভিন্ন পোস্ট এর আগেও সরিয়ে ফেলে মেটা। জায়োনিস্টদের সঙ্গে ‘ইঁদুর’-এর তুলনা করা হয়েছিল এসব পোস্টে।

তবে মেটা বলেছে, জায়োনিস্ট শব্দটি অনলাইন ও অফলাইনে যেভাবে ব্যবহার করা হয়, তা সঠিকভাবে চিহ্নিত করতে কোম্পানিটির নীতিগুলো যথেষ্ট ছিল না।

ওয়ার্ল্ড ইহুদি কংগ্রেস বলেছে, মেটার সিদ্ধান্ত ‘রাজনৈতিক পোস্টের ছদ্মবেশে ছড়িয়ে পড়া ইহুদিবিদ্বেষের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ।’

মেটা আরও বলে, যেসব পোস্টে বলা হবে যে ইহুদিবাদীরা বিশ্বের সংবাদমাধ্যমের প্রচার-প্রচারণা নিয়ন্ত্রণ করে এখন থেকে সেসব পোস্ট সরিয়ে ফেলবে। আবার যেসব পোস্টে ‘অমানবিক’ বা ‘শারীরিক ক্ষতি’ বোঝাতে এই শব্দ ব্যবহার করা হয়, সেসব পোস্টও ব্লক করবে কোম্পানিটি। নতুন নীতিটি মেটাতে একটি বড় পরিবর্তন নিয়ে আসবে।

গাজা যুদ্ধের সময় অনলাইন ও অফলাইনে ইসরায়েলের কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে প্রচারের জন্য ‘জিওনিস্ট’ শব্দটি ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। হামাস পরিচালিত গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান অনুসারে, যুদ্ধে আনুমানিক ৩৮ হাজার ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছে।

অন্যদিকে ইনস্টাগ্রামে ‘Zionist’ শব্দ দিয়ে সার্চ করলে ‘#Zionistterror’ ও “#Zionistsarenazis’ হ্যাশটাগ দেখা যায়।

এই সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে ইহুদি গোষ্ঠীগুলো। তবে ফিলিস্তিনপন্থী প্রচারকারীরা এর বিরোধিতা করেন। এক ডজনেরও বেশি অ্যাকটিভিস্ট গ্রুপ এর বিরোধিতা করে মার্ক জাকারবার্গের কাছে খোলা চিঠি দেন।

ডেইলি খবর টুয়েন্টিফোর

Link copied!