বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০২৪, ১০ শ্রাবণ ১৪৩১

কাস্টমস মতি ঘড়ি পরেন ৩১ লাখ টাকা দামের

ডেইলি খবর ডেস্ক

প্রকাশিত: জুন ২২, ২০২৪, ১২:১৮ পিএম

কাস্টমস মতি ঘড়ি পরেন ৩১ লাখ টাকা দামের


ছাগলকান্ড করে দেশ ছেড়ে চলে গেছেন বরৈ কানা ঘুসা চলছে। প্রথম স্ত্রী ছাগলকান্ডকে নিয়ে বিদেশ পাড়ি জমিয়েছেন বরৈ খবর চাউর হয়েছে। ফোন কওে কাউকেই পাওয়া যাচ্চে না। কোরবানির ঈদে ১৫ লাখ টাকা দামের দউচ্চ বংশীয়‍‍` ছাগল কিনতে গিয়ে ভাইরাল হন মুশফিকুর রহমান ওরফে ইফাত। প্রশ্ন ওঠে ইফাত এত টাকা পান কোথায়? কী তার আয়ের উৎস? অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে ইফাতের এই টাকার উৎস তার বাবা জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সদস্য মো. মতিউর রহমান। বাবার টাকায়ই তার এই বিলাসী জীবন। গত বছরও ঈদুল আজহার সময় রাজধানীর মোহাম্মদপুরের সাদিক অ্যাগ্রো থেকে ছয়টি পশু কিনেছিলেন ইফাত। এই ছয় পশু কিনতে তার খরচ হয়েছিল প্রায় ৩০ লাখ টাকা।
সময় গড়াচ্ছে আর গণমাধ্যমের অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসছে এনবিআর কর্মকর্তা মতিউরের একের পর এক সম্পদের তথ্য। জানা গেছে ৩১ লাখ টাকার বেশি দামের রোলেক্স ঘড়ি পরেন মতিউর। রাজস্ব আয় বাড়ানোর গুরু দায়িত্বে থেকে সরকারকে রাজস্ববঞ্চিত করে গুছিয়েছেন নিজের আখের। চাকরি জীবনের শুরু থেকেই সম্পদের পাহাড় গড়ার লক্ষ্য নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েন তিনি। সব সরকারের আমলেই অবৈধ অর্থের দাপটে রাজনৈতিক আশ্রয়-প্রশ্রয় পেয়েছেন তিনি। বাগিয়েছেন গুরুত্বপূর্ণ পদে পোস্টিং। কাস্টমসে বিএনপির আমলে অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমানের হাতে খড়ি তার। এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি মতির।
কয়েক হাজার কোটি টাকার সম্পদের প্রায় সবই গড়েছেন স্ত্রী-সন্তান ও আত্মীয়-স্বজনদের নামে। কিনেছেন দামি গাড়ি, বাড়ি। তবে নিজেকে ধরাছোঁয়ার বাইরে রাখতেই নানা ধরনের কৌশলের আশ্রয় নিয়েছেন তিনি।
এদিকে, চাকরি জীবনের প্রায় শেষ পর্যায়ে এসে অতিসম্প্রতি ছাগলকান্ডে ফেঁসে গেছেন প্রভাবশালী এই সরকারি কর্মকর্তা। কুরবানির জন্য ১৫ লাখ টাকায় ছেলের কেনা ছাগল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হলে বাবার পরিচয় প্রকাশ পায়। মিডিয়ার সামনে দ্বিতীয় স্ত্রীর সন্তান মুশফিকুর রহমান ইফাতের সঙ্গে তার সম্পর্ক অস্বীকার করেন। তবে অল্প সময়ের মধ্যেই তার সাজানো নাটক ফাঁস হয়ে যায়। এক পর্যায়ে পরিবারের সম্মিলিত সিদ্ধান্তেই দ্বিতীয়পক্ষের স্ত্রী শাম্মী আখতার শিভলী, ছেলে মুশফিকুর রহমান ইফাত ও ইরফান দেশত্যাগ করে মালয়েশিয়ায় পাড়ি জমান। বুধবার চট্টগ্রাম হয়ে কুয়ালালামপুরের উদ্দেশে দেশত্যাগ করেন তারা। সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে উল্লিখিত তথ্য জানা গেছে।
এদিকে, রাজধানীর ধানমন্ডির ৮ নম্বর রোডে ৪১/২ নম্বর ইম্পেরিয়াল সুলতানা ভবনের পাঁচতলায় শুক্রবার (২১ জুন) গিয়ে জানা যায়, ইফাতের পরিবার সেখানে নেই। বাড়ির নিরাপত্তাকর্মী জানান, মঙ্গলবার বাড়ি থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর আর ফিরে আসেননি। যে বাড়িতে ইফাতের জন্ম, সেই বাড়ি ছেড়ে তিনি কোথায় গেছেন তা জানা নেই। ভবনটির পাঁচ তলার পুরো ফ্লোর মতিউর রহমানের দ্বিতীয় স্ত্রী শাম্মী আখতারের নামে কিনে দামি আসবাব দিয়ে সাজানো হয়েছে বলে জানা যায়।
একটি সূত্র জানায়, ইফাতের ছাগলকান্ড সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হওয়ার পর ধানমন্ডির বাসা ছেড়ে কাকরাইলে নিজেদের আরেকটি ফ্ল্যাটে গিয়ে ওঠেন ইফাত, তার মা শাম্মী আখতার ও ছোট ভাই। ২১ জুন দুপুরে কাকরাইলে স্কাইভিউ মমতা সেন্টার নামে ওই ভবনে গিয়ে জানা যায়, ভবনের ৭/ডি নম্বর ফ্ল্যাটটি তাদের। ফ্ল্যাটের নিরাপত্তাকর্মী রবিউল ইসলাম জানান, বুধবার গভীর রাত পর্যন্ত তারা এ বাসায় ছিলেন। এই ফ্ল্যাটে ইফাত, তার মা ও ছোট ভাই মাঝেমধ্যে থাকেন। সেখানে আসেন মতিউর রহমান।
বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় ৭/এ নম্বর রোডের ৩৮৪ নম্বর বাড়িতে ৫ কাঠা আয়তনের প্লটে তৈরি করা সাততলা ভবনের এক ফ্লোরে বাস করেন মতিউর রহমান ও তার প্রথম স্ত্রী লায়লা কানিজ লাকি। এই বাড়িতে মতিউর, তার স্ত্রী ও ছেলের ৫টি গাড়ি রাখা।
ইফাতের পরিবারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিরা বলছেন, ইফাতের মা শাম্মী আখতার ওরফে শিবু মতিউর রহমানের দ্বিতীয় স্ত্রী। শাম্মীর বাবার বাড়ি ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামে। শাম্মী ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সংসদ সদস্য (ফেনী-২) নিজাম উদ্দীন হাজারীর আত্মীয়।

ইফাতের বাবা মতিউর রহমান এনবিআরের কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট অ্যাপিলেট ট্রাইব্যুনালেরও প্রেসিডেন্ট। একজন সরকারি কর্মকর্তা হয়েও শেয়ারবাজারে প্লেসমেন্ট শেয়ারের বড় ব্যবসায়ী তিনি। বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এনটিভিতে (১৯ জুন প্রচারিত) এক সাক্ষাৎকারে মতিউর রহমান বলেছেন, তিনি বিভিন্ন কোম্পানির প্রাথমিক গণপ্রস্তাব (আইপিও) ওই কোম্পানির মালিকদের কাছ থেকে কম দামে কিনে নিয়ে পরে বাজারে বেশি দামে বিক্রি করে অনেক মুনাফা করেছেন।
শুরুতে একাধিকবার গণমাধ্যমের মুখোমুখি হলেও অবস্থা বেগতিক দেখে এখন মতিউর রহমান নিজেকে আড়াল করে রেখেছেন। বন্ধ করে রেখেছেন মোবাইল ফোনও। কারণ ইতোমধ্যে বিষয়টি দুর্নীতি দমন কমিশনের নজরেও এসেছে। তারা এ বিষয়ে অনুসন্ধান চালাবেন বলে জানিয়েছেন।
 

ডেইলি খবর টুয়েন্টিফোর

Link copied!