শনিবার, ২২ জুন, ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১

বাজারে পণ্যের দামের উত্তাপে হাঁসফাঁস অবস্থা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: জুন ৮, ২০২৪, ০৮:৫২ এএম

বাজারে পণ্যের দামের উত্তাপে হাঁসফাঁস অবস্থা


বাজারে পণ্যের দামের উত্তাপে হাঁসফাঁস অবস্থা। বাজেট প্রস্তাবনার পরেই দেশের বাজারগুলোতে প্রতিটি পণ্যেও দাম বেড়েছে।কোনো কারণ ছাড়াই খরচে বাড়ছে টাকার অঙ্ক। বাড়তি সব ধরনের সবজির দাম। পেঁয়াজ-রসুনের দামের হেরফেরে একটু বেশি টান পড়ছে ক্রেতার পকেটে। তবে কিছুটা সহনীয় মাছের দাম। দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট প্রস্তাব ঘোষণার ২৪ ঘণ্টা পার হয়নি এখনো। প্রস্তাবনায় রয়েছে বেশ কিছু নিত্যপণ্যের দাম কমার আভাস। অথচ এরই মধ্যে বেড়েছে সব ধরনের সবজির দাম। ৬ জুন বৃহস্পতিবার বিক্রি হওয়া ৪০ টাকা কেজির ঢেঁড়স এখন বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। করলা ৭০ থেকে ৮০ আর বেগুন ৬০ থেকে ৮০ টাকা, গোল বেগুন সেঞ্চুরি হাকিয়েছে কাকরোল ও ঝিঙার অবস্থা একইরকম অবস্থা। বেড়েছে টমেটোর দামও। ক্রেতারা বলছেন, বাজেট ঘোষনা করলেই দেশের কাঁচা বাজারে সব কিছুর দাম বাড়ে যাওয়ার প্রবনতা দেখা যায়। এরজন্য বাজার মনিটরের কার্যক্রম জোরদার করা উচিত। প্রত্যেকটা সবজির দাম ১০ থেকে ২০ টাকা বেড়েছে। দাম বাড়তির ফলে কম বাজার করতে হচ্ছে এখন।
সবে মাত্র প্রস্তব, এখনো পাস হয়নি বাজেট। এরই মধ্যে বাজারের এমন উত্তাপ দুশ্চিন্তায় ফেলছে ক্রেতাদের। বাদ যায়নি, বাজেট নিয়ে সমালোচনাও। রাজধানীর কারওয়ান বাজারে বাজার করতে আসা এক ক্রেতা কিছুটা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সামান্য কিছু কর দিয়ে কালোটাকা সাদা করতে বলা হয়েছে। আমি মনে করি যারা চাকরি করি, ইনকাম করে কর দিই তাদের জন্য এটা অন্যায় করা হয়েছে। পেঁয়াজ ৮০ থেকে ৮৫ ও রসুন ২২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে আলুর বাজারে দাম কমতে থাকায় কিছুটা স্বস্তিতে ক্রেতারা। বিক্রেতারা বলছেন, আলুর দাম কিছুটা কমেছে। সামনে আরও কমার সম্ভাবনা আছে, তবে বাড়বে না হয়তো। ৭৮০ টাকা কেজি দরে গরুর মাংস বিক্রি হলেও মুরগি আগের দামেই রয়েছে। সহনশীল রয়েছে মাছের বাজার। পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকলেও কোরবানির ঈদ সামনে রেখে বাজারে ক্রেতা কম বলে জানায় বিক্রেতারা। বাজারে নিত্যপণ্যের দাম ক্রয়সীমার মধ্যে রাখতে কঠোর মনিটরিংয়ের দাবি সাধারণ মানুষের।

 

ডেইলি খবর টুয়েন্টিফোর

Link copied!