বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১

২০ হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে না পেট্রোবাংলা

প্রকাশিত: ১২:২৬ পিএম, ফেব্রুয়ারি ৭, ২০২৩

২০ হাজার কোটি টাকা দিচ্ছে না পেট্রোবাংলা

বাংলাদেশ তেল, গ্যাস ও খনিজ সম্পদ করপোরেশনের (পেট্রোবাংলা) কাছে ভ্যাট ও সম্পূরক শুল্ক পাওনার পরিমাণ ২০ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়েছে। অন্যদিকে প্রতিষ্ঠানটি এলএনজি আমদানি করেও চালানের বিল অব এন্ট্রি দাখিল করে না। বছরের পর বছর এনবিআর থেকে বকেয়া পরিশোধে এবং বিল অব এন্ট্রি দাখিল করতে তাগাদা দেওয়া হলেও অগ্রগতি নেই। সম্প্রতি চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস থেকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) চিঠি পাঠিয়ে প্রতিষ্ঠানটির ব্যাংক হিসাব জব্দে অনুমতি চেয়েছে। চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘পেট্রোবাংলার কাছে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব বকেয়া থাকায় কাস্টম হাউসের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। ফিসক্যাল ডিসিপ্লিন ও শুল্ক আনুষ্ঠানিকতার শৃঙ্খলা নষ্ট হচ্ছে।’ বকেয়া রাজস্বের বিষয়ে সম্প্রতি পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পাওয়া জগেন্দ্র নাথ সরকার দেশ রূপান্তরকে বলেন, ‘যেকোনো সমস্যা আলোচনার মাধ্যমে সমাধান হতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি। রাজস্ব পাওনা হলে অবশ্যই পরিশোধ করা হবে। তিতাস থেকেও এনবিআরের কাছে প্রায় ১৬ হাজার কোটি টাকা পাওনা আছে বলে জানি। সব বিষয় নিয়েই বৈঠক করা হবে।’ এনবিআরের প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করে জানা গেছে, বকেয়া পরিশোধ না করলে ব্যাংক হিসাব জব্দ (ফ্রিজ) করা হবে বলেও পেট্রোবাংলাকে জানানো হয়েছে। কিন্তু তাতেও কোনো কাজ হয়নি। এবার এনবিআরের অনুমতি নিয়ে ব্যাংক হিসাব জব্দ করার পথে হাঁটছে চট্টগ্রাম কাস্টমস। ২০২০-২১ অর্থবছর পর্যন্ত পেট্রোবাংলার কাছে বকেয়া রাজস্বের পরিমাণ ২২ হাজার ৬০১ কোটি ৪ লাখ টাকা। এর সঙ্গে গত অর্থবছরের পাওনা যোগ হয়ে বকেয়ার পরিমাণ প্রায় ২৩ হাজার কোটি টাকা হয়েছে। সম্প্রতি এনবিআরের বৃহৎ করদাতা ইউনিট থেকে পেট্রোবাংলার মহাব্যবস্থাপকের (এফএমডি) বকেয়া পরিশোধে চিঠি পাঠিয়ে বলা হয়েছে, ‘বকেয়া পাওনা আদায়ে পেট্রোবাংলা দপ্তরের বিভিন্ন পর্যায়ের প্রতিনিধির সঙ্গে টেলিফোনে আলোচনাসহ বৃহৎ করদাতা ইউনিট (মূসক) দপ্তর ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে সভা হয়েছে। এসব সভায় পেট্রোবাংলা বৃহৎ করদাতা ইউনিটের কোনো মূসক ও সম্পূরক শুল্ক বকেয়া রাখবে না বলে জানালেও বাস্তবায়ন হয়নি। পেট্রোবাংলা কর্তৃপক্ষ বকেয়া পরিশোধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে বলেও সম্মতি দিয়েছিল। কিন্তু বকেয়া পাওনা পরিশোধ করা হয়নি।’ পাওনা পরিশোধ না করলে বিদ্যমান মূসক আইন অনুযায়ী ব্যাংক হিসাব থেকে অর্থ কর্তনের বিষয়ে পরবর্তী আইনানুগ কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে বলেও এনবিআরের চিঠিতে জানানো হয়েছে। এনবিআর থেকে পাঠানো চিঠিতে দাবিনামার অন্তত ২০ শতাংশ পরিশোধের পাশাপাশি বাকি টাকা ছয় মাসের কিস্তিতে পরিশোধের অনুরোধ করা হয়েছে। পেট্রোবাংলার ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘আমাদের বড় অঙ্কের অর্থ বিনিয়োগ করতে হয় এলএনজি আমদানিতে। পেট্রোবাংলা চেষ্টা করছে রাজস্বের বিষয়ে জটিলতা কাটিয়ে উঠতে।’ অন্যদিকে চট্টগ্রাম কাস্টম হাউস থেকে পাঠানো আরেক চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘পেট্রোবাংলার আমদানি করা এলএনজি বিশেষ বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন হওয়ায় গ্যাস পরিবহনকারী কার্গো জাহাজ থেকে মহেশখালীতে অবস্থিত এলএনজি টার্মিনালের এফএসআরইউতে এলএনজি আনলোড করা হয়। এই ভাসমান এলএনজি টার্মিনাল থেকে গ্যাস সরাসরি জাতীয় গ্রিডে সরবরাহ করা হয়ে থাকে। কাস্টমস আইনের ৭৯(এ) ধারা অনুযায়ী, ইলেকট্রনিক মাধ্যমে প্রেরিত বিল অব এন্ট্রি এবং এনবিআরের ২০০১ সালের এক আদেশ অনুযায়ী বিল অব এন্ট্রিসহ আনুষঙ্গিক দলিলাদি সংশ্লিষ্ট কমিশনারে দাখিল করতে হয়। সেই অনুযায়ী পণ্য শুল্কায়ন ও শুল্ককর পরিশোধ করে খালাসের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। কিন্তু পেট্রোবাংলার পণ্যচালান আমদানি হওয়ার ছয় মাস পরে বিল অব এন্ট্রি দাখিল করা হয়নি, যা কাস্টমস আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন ও শাস্তিযোগ্য অপরাধ।’ চিঠিতে আরও বলা হয়, কাস্টম হাউস থেকে পেট্রোবাংলাকে ১০ বার চিঠি দেওয়া হয়েছে। ২০ জুন আমদানিকারক পেট্রোবাংলাকে কারণ দর্শানোর নোটিস জারি করা হয়, কিন্তু কোনো জবাব দেয়নি। ২৬ জুন আবার চিঠি দেওয়া হয়; যাতে বলা হয়, বকেয়া পরিশোধ ও আইনের পরিপালন করা না হলে কাস্টমস আইন ও মূসক আইন অনুযায়ী, প্রতিষ্ঠানের বিন লক, পণ্য খালাস বন্ধ ও ব্যাংক হিসাবের লেনদেন কার্যক্রম অপরিচালন করা হবে। এরপরও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বকেয়া পরিশোধে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। তবে ৭ জুলাই ও ২১ সেপ্টেম্বর পেট্রোবাংলা থেকে চিঠির মাধ্যমে কাস্টম হাউসকে জানানো হয় যে অর্থ বিভাগ থেকে ভর্তুকি প্রাপ্তি সাপেক্ষে এলএনজি আমদানি পর্যায়ে বকেয়া শুল্ককর পরিশোধ করা হবে। প্রসঙ্গত, পেট্রোবাংলা সরকারি মালিকানাধীন বাংলাদেশের তেল, গ্যাস ও খনিজ অনুসন্ধান এবং উন্নয়নের উদ্দেশ্যে গঠিত একটি প্রতিষ্ঠান। এটি দেশের খনিজ তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস অনুসন্ধান, উত্তোলন, পরিশোধন ও বাজারজাতকরণেও কাজ করে। এ ছাড়া প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশে তেল ও প্রাকৃতিক গ্যাস অনুসন্ধান এবং উন্নয়নে আন্তর্জাতিক তেল কোম্পানিগুলোর সঙ্গে উৎপাদন অংশীদারি চুক্তিও সম্পাদন করে থাকে।
Link copied!