বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১

অলি-গলিতে আড্ডার তথ্য জানান র‌্যাবকে

প্রকাশিত: ০২:১২ পিএম, এপ্রিল ২৫, ২০২০

অলি-গলিতে আড্ডার তথ্য জানান র‌্যাবকে

র‌্যাপিড অ্যাকশান ব্যাটালিয়ননের (র‌্যাব) বাহিনীটির নবনিযুক্ত মহাপরিচালক (ডিজি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেছেন, অনর্থক ঘরের বাইরে ঘোরাফেরা বন্ধ নিশ্চিত করতে কাজ করছে র‍্যাব। পাড়া-মহল্লার অলি-গলিতে আড্ডার তথ্য থাকলে র‍্যাবকে জানানোর অনুরোধ করেছেন তিনি। শনিবার দুপুরে চলমান করোনা পরিস্থিতি এবং রমজানের নিরাপত্তার বিষয়ে আয়োজিত অনলাইন ব্রিফিংয়ে তিনি এ অনুরোধ জানান। র‍্যাব ডিজি বলেন, এ বিষয়ে জনসচেতনতা বৃদ্ধির জন্য আমরা সবাই কাজ করছি। এরপরও কিছু মানুষের মধ্যে অসচেতনতা দেখা যাচ্ছে। যেখানে জনসাধারণের অনর্থক আড্ডার তথ্য পাবো, আমাদের মোবাইল টিমগুলো সেখানেই ডাইভার্ট করা হবে। কারো কাছে কোনো তথ্য থাকলে আমাদের জানান, যেন মোবাইল টিমগুলো সেদিকে ডাইভার্ট করতে পারি। তিনি বলেন, করোনার প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় আমাদের উপর অর্পিত দায়িত্ব আমরা পালন করে যাচ্ছি। জনসচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি আমাদের টহল অব্যাহত আছে। নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে এ পর্যন্ত দেশব্যপী ৩৫৮টি ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হয়েছে। করোনা বিষয়ক গুজব প্রতিরোধে র‌্যাবের ভার্চুয়াল পেট্রোলিং অব্যাহত রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, গুজব রটনা করে এমন ৫০টি সাইট নজরদারিতে রয়েছে। এ পর্যন্ত গুজব ছড়ানোর দায়ে ১১ জনকে আইনের আওতায় আনা হয়েছে। অনেকেই না বুঝে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভিন্ন কনটেন্ট লাইক- শেয়ার করে আইনের আওতায় আসার মতো পরিস্থিতিতে পড়েন। তাই না বুঝে কাউকে এ ধরনের কর্মকাণ্ড এড়িয়ে চলার অনুরোধ জানান তিনি। একইসঙ্গে যেকোনো তথ্য যাচাইয়ে র‌্যাব সাইবার ভেরিফিকেশন সেন্টারের সহায়তা নেওয়ার কথাও বলেন তিনি। করোনা পরিস্থিতিতে দেশজুড়ে র‌্যাবের পক্ষ থেকে প্রায় ১২ হাজার পরিবারকে ত্রাণ সহায়তা দেওয়া হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, যেকোনো পরিস্থিতিতে জঙ্গি-সন্ত্রাসীদের থেকে নজর সরায়নি র‌্যাব। করোনা সংকটের মধ্যে ৮ মার্চ থেকে এ পর্যন্ত ৩২ জন জঙ্গি ও ১ হাজার ৩৮২ জন অপরাধীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। রমজানে নিরাপত্তার বিষয়ে র‌্যাব ডিজি বলেন, রমজানে গোয়েন্দা নজরদারি বৃদ্ধিসহ চেকপোস্ট ও টহল জোরদার করা হয়েছে। সাদা পোশাকে র‌্যাবের গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। এবারের রমজানে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের নির্দেশনা বাস্তবায়নে র‌্যাবের নজরদারি থাকবে। তিনি বলেন, করোনা সংকটে পণ্যবাহী যানবাহন চলাচলে সহযোগিতা করছে র‌্যাব। সবজিবাহী যানবাহন যেখানে আসছে র‌্যাব সেখানে সহযোগিতা করছে। কিন্তু কোনো কোনো ক্ষেত্রে দেখা যাচ্ছে সবজির গাড়িতে মাদক আনার চেষ্টা করা হচ্ছে। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে আমরা ইতোমধ্যে বেশকিছু মাদকের চালান আটক করতে পেরেছি। আমাদের গোয়েন্দা সদস্যরা সক্রিয় রয়েছে। সর্বস্তরের জনগণকে আমরা আহ্বান জানাচ্ছি, আপনাদের কাছে যদি মাদক সরবরাহের কোনো তথ্য থাকে তাহলে র‌্যাবকে জানান
Link copied!