সোমবার, ২০ মে, ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

সাড়ে ২১ কোটি টাকা ফাঁকি

প্রকাশিত: ০৫:৩৭ এএম, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২০

সাড়ে ২১ কোটি টাকা ফাঁকি

ডেইলি খবর ডেস্ক: ভ্যাট ফাকি টাকাপাচার মানবপাচার ব্যাংক লুন নিযে মেরে দেয়ার খবরের সাথে এবার যুক্ত হয়েছে মানবসম্পদ সেবার প্রতিষ্টানের নামে ব্যবসা করে সাড়ে ২১ কোটি টাকার ভ্যাট ফাঁকির তথ্য। ভ্যাট গোয়েন্দার অভিযানে এ তথ্য উটে এসেছে। মানবসম্পদ সেবার এ প্রতিষ্ঠানটির নাম ফ্রন্টডেস্ক বাংলাদেশ লিমিটেড। এর অফিস রাজধানীর বারিধারায়। প্রতিষ্ঠানটি দেশের খ্যাতনামা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে টেকনিক্যাল ও সাধারণ মানবসম্পদ সেবা বিক্রয় করে থাকে। ২০১৫ সালের ফেব্রæয়ারী থেকে প্রতিষ্ঠানটি এই সেবা বিক্রয় করে আসছে। সূত্র জানায়, ভ্যাট ফাঁকির গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভ্যাট গোয়েন্দার একটি দল গত ১০ আগস্ট ওই প্রতিষ্ঠানের বারিধারার অফিসে অভিযান চালায়। এতে ভ্যাট আইনের ৮৩ ধারা প্রয়োগে তাদের অফিসের নিজস্ব কম্পিউটার ও সংরক্ষিত বাণিজ্যিক কাগজপত্র জব্দ করা হয়। এ সব তথ্যাদি যাচাই করে দেখা যায়,কোম্পানিটি প্রকৃত সেবা বিক্রয়মূল্য গোপন করে নামমাত্র সেবা মূল্য তাদের ভ্যাট রিটার্নে প্রদর্শন করে বিপুল প্রমাণ ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে। ভ্যাট গোয়েন্দার তদন্তের সুত্রগুলো জানায়, ফেব্রুয়ারী ২০১৫ থেকে জুলাই ২০২০ পর্যন্ত ৩২ কোটি ৮৪ লাখ টাকার সেবা বিক্রয় দেখানো হয়েছে। এর বিপরীতে তারা ভ্যাট দিয়েছে ২ কোটি ৬৮ লাখ টাকা। তবে জব্দ করা কাগজপত্র অনুযায়ী ফ্রন্টডেস্ক প্রকৃত সেবা বিক্রয় করেছে ১২৯ কোটি ৬৪ লাখ টাকার। এই বিক্রয়ের ওপর ভ্যাট দেওয়ার কথা ১৯ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। মানবসম্পদ প্রতিষ্ঠানটি এই পাঁচ বছরে ভ্যাট ফাঁকি দিয়েছে ১৫ কোটি ৭৪ লাখ টাকা। ভ্যাট আইন অনুসারে যথাসময়ে ভ্যাট না দেওয়ায় এই ফাঁকির ওপর মাসিক ২ শতাংশ হারে সুদ প্রযোজ্য হয়ে ৫ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। সেই হিসেবে প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে মোট ২১ তোটি ৪৯ লাখ টাকা ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগ উঠেছে। ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগ এনে বুধবার ১৬ আগস্ট ফ্রন্টডেস্কের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। ফ্রন্টডেস্ক ভ্যাট আইনের সেবার কোড ০৭২.০০ এর আওতায় ‘মানবসম্পদ সরবরাহ বা ব্যবস্থাপনা’ প্রতিষ্ঠান। এই আইন অনুযায়ী সেবা বিক্রয়ের ক্ষেত্রে সর্বমোট প্রাপ্তির ওপর ১৫ শতাংশ হারে ভ্যাট প্রযোজ্য। প্রতিষ্ঠানটি ঢাকা উত্তর ভ্যাট কমিশনারেটের আওতাভুক্ত।
Link copied!